আইনস্টাইন ১৯৫৫ সালে ১৮ এপ্রিল, প্রিন্সটনে মারা যান। মারা যাবার আগে তিনি স্পষ্ট করে বলেছিলেন যে, তার শরীরের কোন কিছু নিয়ে যেন কোন গবেষণা যেন না করা হয়। তিনি বলেছিলেন যে, তার মৃতদেহ কে যেন পুরিয়ে ফেলা হয় ও সেই ছাই গুলো যেন সবার অগোচরে ছিটিয়ে ফেলা হয়।

সবথেকে দুঃখজনক বিষয়টি হচ্ছে যে, আইনস্টাইন যা চেয়েছিলেন তা মোটেও হয় নি। থমাস হার্ভে নামের এক প্যাথলজিষ্ট তার ময়নাতদন্ত করেন ও তিনি তার ব্রেইনটি সবার আগচরে সেখান থেকে চুরি করেন। তিনি এই চুরিটি করেছিলেন তার ব্রেইনের উপর গবেষণা করে একটি পেপার প্রকাশ করার জন্য, কিন্তু পরবর্তীতে এরকম কোন কিছুই তিনি করেননি।

তিনি প্রথমে ব্রেইনটির সবদিক থেকে ছবি তোলেন ও তারপর তার ছোট ছোট টুকরা করে ব্রেইনটিকে ফর্মালডিহাইড সলুসানে ডুবিয়ে জারে করে তার বাড়িতে সরক্ষন করেন।

২০০৭ সালে তিনি মারা যাবার পর তার পরিবার সেই ছবি ও ব্রেইনের টুকরা গুলোকে সিলভার স্প্রিংস, মেরিল্যান্ডের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা জাতীয় যাদুঘরে দিয়ে দেন।