ক’নডম ব্যবহার করে গো’পনাঙ্গে পচন!

ভারতের লক্ষ্ণৌ প্রদেশের এক যুবকের ক’নডম ব্যবহার করে গো’পনাঙ্গে পচন ঘটেছে। তিনি তার যৌ’ন সুখের সময় বৃদ্ধি করতে বেছে নিয়েছিলেন এক্সটেন্ডেড প্লেজার’-এর ক’নডম। বাজারে এই ক’নডমটি নতুন এসেছিল। আর এটা বিপত্তিও তৈরী করে দিল। এটা ব্যবহার করেই তার গো’পনাঙ্গে পচা শুরু করে। অবশেষে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হোন।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘দ্য সান’ এক প্রতিবেদনে জানায়, ক’নডমটি পরতেই তার যৌ’নাঙ্গ নিজে থেকেই ফুলে ফেপে বড় হতে শুরু করে। আর এতে করে অনেক ভয় পেয়ে যান ৩০ বছর বয়সী ঐ যুবক। ধীরে ধীরে সেই ফোলা জায়গায় জালাতন শুরু হয়। আর এরপর যুবকটি সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে ছোটেন। সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তাররা বুঝতে পারেন যে, আসলে এই ক’নডমটি ব্যবহারের ফলে সেই যুবকের ঐ খানে অ্যালার্জী তৈরী হয়। আর যুকবটি যে একজন অ্যালার্জী রোগী, সেই কথাটি যুবকটি জানতই না।

এরপর নানা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ডাক্তাররা এটা বের করতে সক্ষম হয় যে, আসলে তার কোন যৌ’ন রোগ হয়নি। আসলে ক’নডমের উপাদান বেনজোকেইন থেকেই তার অ্যালার্জি তীব্রতর হয়েছে। আর তাতেই তার সেখানে গ্যাংরিন হয়ে যায়। আর তার গো’পনাঙ্গের মুখটি পচতে শুরু করে।

চিকিৎসকদের মতে, এই ক’নডমটিতে এক ধরনের উপাদান দিয়ে তৈরী করা হয়েছে, যাতে সেই জায়গাটি সাময়িকভাবে অবশ হয়ে থাকে। আর এই অবশ হওয়ার ফলে যৌ’ন সুখ দীর্ঘায়িত হয়। মোট কথা এটি যৌ’ন সংসর্গের সময় বাড়াতে সাহায্য করে।

ভারতীয় একটি গণমাধ্যম বলছে, চিকিৎসকেরা প্রথমে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা শুরু করে। পরে সেখানকার পচে যাওয়া কোষ গুলি অপসারণ করে গো’পনাঙ্গে অস্ত্রোপচার করে। টানা ৩ সপ্তাহ ধরে এই চিকিৎসা চলে। আর যুবকটির পুরোপুরি সুস্থ হতে সময় লাগে ৬ মাস। বর্তমানে অনেকেই এই রোগে আক্রান্ত হলেও সামাজিক লজ্জার ভয়ে অনেকেই ডাক্তারের কাছে আসে না।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।