করোনাভাইরাসের প্রভাবে বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়লেও কমেছে স্বর্ণের দাম। জানা গেছে, ভরি প্রতি বাংলাদেশে ১ হাজার ১৬৬ টাকা আর কলকাতায় ৩০২০ টাকা দাম কমছে। বুধবার বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি (বাজুস) এ সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম দাঁড়িয়েছে কলকাতায় ৪৫ হাজার টাকা আর বাংলাদেশে ৬০ হাজার ৩৬১ টাকা। গত ১২ই মার্চ থেকে থেকে এই দাম কার্যকর হয়েছে।

এর আগে, সর্বশেষ কলকাতা ও বাংলদেশ দুই দেশেই দাম বাড়ানো হয়েছিল। বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ সব তথ্য জানানো হয়।

এদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে (দুবাই) মঙ্গলবার প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম ছিল ৪৬ দশমিক ২২ ডলার। এ হিসাবে স্থানীয় মুদ্রায় প্রতি ভরির দাম পড়ে (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা হিসাবে) ৪৫ হাজার ৮২৪ টাকা। ফলে দুবাইয়ের সঙ্গে বাংলাদেশি বাজারে ভরিতে পার্থক্য প্রায় ১৫ হাজার টাকা আর ভারতে সমান। অর্থাৎ স্বর্ণের বাজারে বিশৃংখলা চলছে।

নতুন মূল্য অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের প্রতিভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে কলকাতায় ৪৫ হাজার টাকা আর বাংলাদেশে ৬০ হাজার ৩৬১ টাকা।

এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম বাংলাদেশে ৫৯ হাজার ১৯৪ টাকা থেকে কমে ৫৮ হাজার ২৮ টাকায় বিক্রি হবে। এ হিসাবে ভরিতে দাম কমেছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা।

বাংলাদেশে ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ প্রতি ভরি ৫৪ হাজার ১৭৯ টাকা থেকে কমে ৫৩ হাজার ১২ টাকায় বিক্রি হবে। ফলে ভরিতে দাম কমেছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা। একই হারে কমে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ প্রতি ভরি ৪০ হাজার ২৪০ টাকায় বিক্রি হবে। অন্যদিকে রূপার দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। প্রতিভরি রূপা ৯৩৩ টাকায় বিক্রি হবে।

৬ মার্চ কলকাতায় ১০ গ্রাম পাকা সোনা (২৪ ক্যারাট) ৪৫,০০০ টাকা ছাড়িয়েছিল। শুক্রবার ধরলে দাম কমেছে ৩১৮০ টাকা। একই ছবি গয়নার সোনার (২২ ক্যারাট) ক্ষেত্রেও। তা কমেছে ৩০২০ টাকা। ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছেন, করোনার আতঙ্কে মানুষ বেরোচ্ছেন না। তাই দাম কমলেও বাজার শুনশান।