নয়ন বন্ডের স্ত্রী ছিলেন মিন্নি

বহুল আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী তার রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। পরবর্তীতে নানা সন্দেহর কারণে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে, ৫ দিনের রিমান্ডে নিলে মিন্নি হত্যার সাথে জড়িত থাকার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

এই জবানবন্দিতে মিন্নি পুরো ঘটনার বর্ণনা দেয়। বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সিরাজুল ইসলাম গাজীর খাসকামরায় ১৯ জুলাই মিন্নির এই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। এই জবানবন্দি রেকর্ড করার সময় বিচারক ও মিন্নি ছাড়া আর কেউ সেখানে উপস্থিত ছিলেন না।

তবে মিন্নির দেওয়া এই জবানবন্দি প্রত্যাখ্যান করেছে মিন্নির পরিবার, তাদের মতে পুলিশ জোর করে ও মারধোর করে মিন্নির কাছে থকে এই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করিয়েছে। মিন্নির বাবা কিশোর বলেন যে, ‘১২ ঘণ্টা পুলিশ লাইনে বসিয়ে রেখে আমার মেয়েকে প্রচুর মারধর করা হয়। যখন আদালতে তোলা হয় তখন আমার মেয়ে ঠিকমতো দাঁড়িয়ে থাকতেও পারছিল না।’

মিন্নির পরিবারের মতে এই বিষয়ে উপর মহল থেকে চাপ তৈরি করায় তার মেয়েকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হচ্ছে। আর আদালতে মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী না থাকার এই বিষয়টি নিয়ে রয়েছে নানা গুঞ্জন।

বরগুনা জেলা অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে দায়িত্বরত অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর সামনে মিন্নির রিমান্ড শুনানিকালে মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী না থাকায় মিন্নিকে কথা বলার সুযোগ দেওয়া হয়। এই সময় তাকে ‘এজাহারভুক্ত আসামিদের সঙ্গে আগে থেকেই আপনার যোগাযোগ ছিল এবং আসামি নয়ন বন্ডের সঙ্গে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সম্পর্ক ছিল’- এই প্রশ্নটি করা হলে মিন্নি কোন উত্তর দেন নি।

২০১৮ সালের ১৫ অক্টোবর নয়ন বন্ডের সঙ্গে ৬ লাখ টাকা কাবিনে মিন্নির বিয়ে হয় কিন্তু পরবর্তীতে নানা ধরনের চাপে পরে মিন্নি নয়নের কাছে থেকে চলে আসেন কিন্তু তাদের তালাক হয় নি। নয়ন বন্ডের সাথে মিন্নি যোগাযোগ কোনদিন বন্ধ ছিল না, মিন্নি নয়ন বন্ডের স্ত্রী থাকাকালীন তার প্রাক্তন প্রেমিক রিফাত শরীফকে বিয়ে করেন।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।