২০১৪ সালে শাহরিয়ার নাজিম জয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে পূর্বাচলে একটি প্লট চেয়ে আবেদন করেছিলেন। এই আবেদনের কপি এখন ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। তিনি পূর্বাচলে ১০ কাঠা/৫ কাঠার প্লট চেয়েছিলেন। তার আবেদন অনুসারে তার সমসাময়িক শিল্পীরা পূর্বাচলে ১০ কাঠা/৫ কাঠার প্লট পেয়েছিলে কিন্তু তিনি দেশে না থাকায় তা পাননি। তাই তিনি প্রধানমন্ত্রীকে তাকে একটি প্লট দেবার আবেদন করেন।তাই সামাজিক মাধ্যমগুলোতে এই নিয়ে চলছে তুমুল সমালোচনা।

আবেদনে জয় প্রধানমন্ত্রীকে ‘উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠ নেত্রী’ ও ‘আদর্শ মা’ উল্লেখ করে লিখেছেন- ‘আপনার সুযোগ্য পুত্রের নামের আরেক পুত্র শাহরিয়ার নাজিম জয়ের পক্ষ থেকে আপনার প্রতি রইল সালাম। আমি বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় নায়ক (টিভি, চলচ্চিত্র)।
আপনার দোয়ায় গত ১৭ বছর ধরে বাংলাদেশের জনগণের বিনোদনের অন্যতম উৎস হয়ে আছি টিভি ও সুস্থ চলচ্চিত্রে। আপনি অত্যন্ত দরদী ও বাংলার মানুষের বিপদের বন্ধু। শুধু তাই নয়।
মা, আপনার কাছে একজন শিল্পীর আবেদন আমার সমসাময়িক শিল্পীরা পূর্বাচলে ১০ কাঠা/৫ কাঠার প্লট পেয়েছেন। কিন্তু আমি শুটিংয়ের জন্য দেশের বাইরে থাকায় আবেদন করতে পারিনি। পরবর্তীতে ঝিলমিল প্রকল্পে আবেদন করলেও লটারিতে তা পাইনি।
মা, পূর্বাচলে একটা জমি আমার স্বপ্ন ও সন্তানের ভবিষ্যৎ। আমি আপনার কাছে আবদার করলাম। আপনি আপনার এই সন্তানের আবদার ফেলে দিবেন না আমি জানি (ইনশাআল্লাহ)।

সম্প্রতি শাহরিয়ার নাজিম জয় নাঈমের একান্ত সাক্ষাৎকার নিয়ে পড়েছেন তোপের মুখে, কারণ সেই সাক্ষাৎকারে তিনি নাকি সব কথায় শিখিয়ে দিয়েছিলেন নাঈমকে। তিনি কেন এমন করেছেন তা মোটেও জানা যায়নি। নাঈম তার পুরুষ্কারের টাকা এতিমখানার অনাথ শিশুদের জন্য দান করে দিতে চায় কারন খালেদা জিয়া এতিমের টাকা লুট করে খেয়েছে, এমনটি বলতে যে জয় তাকে শিখিয়ে দিয়েছে তা সোজাসাপ্টা ভাবেই সে গণমাধ্যমকর্মী আমিরুল মোমিনিন মানিকে জানিয়ে দেয়।

জয় সব কিছু অস্বীকার করেন ও আল্লার কসম করে তিনি বলেন যে তিনি নাঈমকে কোন কথাই শেখাননি, তার কথা অনুসারে নাঈম তার বক্তব্য সে নিজের দায়িত্বে দিয়েছে। এই সবের পর থেকে তিনি প্রাণ নাশের হুমকি পাচ্ছেন আর সেজন্য তিনি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে জীবন ভিক্ষা চেয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ

জয়ের একান্ত সাক্ষাৎকারে নাঈমের বলা প্রতিটি কথা শেখানো

আল্লাহর কসম করে বলছি, নাঈমকে আমি কোন কথাই বলতে শিখাইনিঃ জয়