ফেসবুকে বুড়ো হবার ছবি পোস্ট করে যে সকল বিপদ ডেকে আনছেন

ফেসবুকে কখন কি যে ভাইরাল হয় তা কেউ বলতে পারে না, আর যখন কোন কিছু ভাইরাল হয় তখন সবাই সেই দিকে ঝুকে পরে। সম্প্রতি ভাইলার হওয়া একটি বিষয় হচ্ছে বুড়ো অবস্থার ছবি পোস্ট করা। এই কাজটি করার জন্য সবাই যে অ্যাপটি ব্যাবহার করছেন তা হল ‘ফেসঅ্যাপ’।

এই ‘ফেসঅ্যাপ’ এমন একটি অ্যাপ যা আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করে নিখুঁতভাবে যে কোন মানুষের ছবিকে এডিট করে তার বয়স বাড়িয়ে দেয়। এছাড়াও এটি দিয়ে ছবিতে বয়স কমানো যায় ও চুল ও দাঁড়ির কায়দা বদল করা যায়।

এই ছবিতে বয়স বা অন্য কিছু পরিবর্তন করার জন্য ব্যাবহারকারীকে তার ছবি ফেসঅ্যাপের নিজেদের সার্ভারে আপলোড করতে হয়। আর এখান থেকেই শুরু হয় সন্দেহের সূত্রপাত।

কাল এলিজাবেথ পটস উইন্সটাইন নামে এক নারী ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলী পোস্ট করে টুইটারে একটি টুইট করেছেন, যা পড়ে যে কেউ বড় ধরনের ধাক্কা খেতে পারে। এর ব্যবহারের শর্তাবলী অনুযায়ী আপনি ফেসঅ্যাপ কোম্পানির সার্ভারে আপলোড করা সব ছবি, নিজের নাম, আপনি কী পছন্দ করেন, আপনার গলা এই সকল তথ্য তাদের বাণিজ্যিক কারণে ব্যবহারের আনুমতি দিচ্ছেন।

এখন আপনি যদি এই অ্যাপ ব্যবহার করার জন্য আপনার সকল তথ্য তাদের হাতে তুলে দেন তাহলে তা আর বোকামি ছাড়া আর কিছুই না। এর আগেও এই রকম নানা ধরনের অ্যাপ কয়েক কোটি মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে ও নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করেছে।

টেক বিশেষজ্ঞরা এই অ্যাপ নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন। এছাড়াও এই ফেসঅ্যাপ নিয়ে চলছে নানা তদন্ত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।