বাদুড়ের তাণ্ডবে বন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়!

বাদুড় সাধারণত দল বেঁধে থাকে, এই কথাটি কম বেশি সবাই জানে কিন্তু তাই বলে যে হাজার হাজার বাদুড় এক সাথে কোথাও হানা দেয়, এমন কথা হয়তো এর আগে কেউ কোনদিন শোনেননি। বাদুড়ের সাধারনত দিনের বেলায় দেখা যায় না, তারা সাধারণত রাতে জেগে থাকে ও খাবার সন্ধান করে।

আপনি হয়তো এক সাথে কখনো দুই তিনটির বেশি বাদুড় দেখেননি কিন্তু এই ঘটনায় এক সাথে কয়েক হাজার বাদুড় বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে পরে। এই হাজার হাজার বাদুড়ের ঝাঁকের তাণ্ডবে লুইসিয়ানার একটি বিশ্ববিদ্যালয় তাদের একটি ভবন সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে।

এই বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম মুনরো কলেজ অব হেলথ সায়েন্সেস, এর ডিন কেন অ্যালফোর্ড সবার আগে ওই ভবনে এক মাস আগে একটি বাদুড় দেখতে পান। তখন তিনি বিষয়টিকে আমলে নেন নি কিন্তু পরবর্তীতে বাদুড়গুলো সেখান থেকে ক্লাসরুম, হলরুম এবং অফিসেও আসতে শুরু করে ও এক পর্যায়ে অবস্থা বিরূপ হয়ে যায়।

এই সময় তারা হাজার হাজার বাদুড়ের একটি ঝাঁকের তাণ্ডবে তাদের একটি ভবন সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেন। ডিন কেন টিভিতে এক সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে বলেন, ‘ব্যাপারটি উপহাসের মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে।” তিনি আরও বলেন যে কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণ কর্মীরা বিল্ডিংটিকে বাদুড় থেকে বাঁচাবার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু তারা তাতে সফল হন নি।

কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণ কর্মীরা বাদুড়দের বের হয়ে যাওয়ার জন্য কিছু রাস্তা তৈরি করে দিয়েছিলে ও তারা মনে করিছিলেন সন্ধ্যায় বাদুড়গুলো বাইরে চলে যাবে কিন্তু তা হয় নি। তবে বাদুড় বিতাড়নের কাজ চলছে ও কর্মীরা আশা করছেন যে দুই সপ্তাহের মধ্যেই কাজটি হয়ে যাবে ও তারপর ভবনটি খুলে দেওয়া হবে।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।