লাখ টাকার গরুর চামড়ার দাম ২০০, খাসি মাত্র ১০ টাকা!

এর আগের বছরগুলোতে নামাজের পর থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীর ভীড় দেখা গেলেও এবার তাদের সে রকম দেখা মেলেনি। এর পেছনের একটিমাত্র কারণ, আর তা হল চামড়ার দাম না থাকা। ১ লাখ টাকার উপরে গরুর চামড়ার দাম ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা আর লাখের নিচের গরুর চামড়ার দাম ২০০ বা তার থেকেও কম।

আর খাসির চামড়ার দাম নেই বললেই চলে, গড়ে একটি খাসির চামড়া বিক্রি হচ্ছে মাত্র ১০ থেকে ১৫ টাকায়।এর থেকে বেশি দাম আর কেউ বলছে না তাই বেশিভাগ মানুষ মাদ্রাসা ও এতিমখানার দান করছেন তাদের খাসির চামড়া।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন যে, গত ১০-১২ বছরের মধ্যে এই বার সবচেয়ে কমদামে বিক্রি হচ্ছে যে কোন পশুর চামড়া কিন্তু সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া দাম অনুসারে এর দাম এত কম নয়।সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া দাম অনুসারে, ট্যানারি মালিকদের কোরবানির গরুর প্রতিটি ২০ থেকে ৩৫ বর্গফুট চামড়া ৯০০ থেকে ১ হাজার ৭৫০ টাকায় কেনার কথা ( লবণ দেওয়ার পরে )।

সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া দামের সাথে সাথ না করে সমান তালে চলছে দাম কম করার প্রতিযোগিতা। গতবছর একেকটি গরুর চামড়া আকার ভেদে ৪শ’ থেকে ৮ শ’ টাকায় বিক্রি হয়েছিল কিন্তু এইবাএ তার অর্ধেক দামও উঠছে না। এক কথায় বলতে গেলে সিন্ডিকেটের কাছে বন্দি সকল পশুর চামড়ার দাম।

রাজধানীর মানিক নগর এলাকায় গতবছর কাঁচা চামড়া যারা কিনেছিলেন তাদের একজনের সাথে কথা বলে জানা যায় যে, তিনি এ বছর চামড়া কিনছেন না করন গতবছরের থেকে এবার দাম আরও কম ও এই দামে চামড়া কিনলে ক্ষতি নিশ্চিত।

এছাড়াও আড়ৎদারদের কাছে চামড়া বিক্রি করতে এসে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।তবে এ বিষয়ে ট্যানারি মালিক ও প্রতিনিধিরা বলছেন যে, এতে তাদের কিছু করার নেই, মৌসুমি ব্যবসায়ীদের অজ্ঞতার কারণেই এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।