লাইভ বা সরাসরি সম্প্রচারে বিধি-নিষেধ আরোপের বিষয়ে চিন্তা করছে বিশ্বের বহুল ব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, এমটি জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড নামের সংবাদ মাধ্যম। এই নতুন নিয়ম চালু করা হলে সকল ব্যবহারকারীর জন্য আর ফেসবুক লাইভ উন্মুক্ত থাকবে না।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে হামলার লাইভ ভিডিও ফেসবুকে প্রকাশ পাওয়ার পর এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। হামলার লাইভ ভিডিও টির জন্য তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে ফেসবুক। তাই তারা ‘লাইভ-স্ট্রিমিংয়ে’ নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা করেছেন।

৩০ শে মার্চ নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড নামের সংবাদ মাধ্যমকে ফেসবুকের প্রধান পরিচালনা কর্মকর্তা শেরিল স্যান্ডবার্গের চিঠি পাঠিয়ে জানান যে, লাইভে কে আসতে পারবে বা পারবে না তা নিয়ন্ত্রণে কী করা যায় সে বিষয়ে ভাবছেন তারা ও খুব তাড়াতাড়ি এই বিষয়ে পদক্ষেপ নিবেন তারা।

শেরিল স্যান্ডবার্গ

তবে নীতিমালায় কোনও পরিবর্তনের ঘোষণা এখনও দেননি স্যান্ডবার্গ, যদিও এই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে বিদ্বেষমূলক কনটেন্ট মোকাবেলায় কিভাবে পদক্ষেপ নেয়া হবে সে বিষয়ে ধারণা দিয়েছেন তিনি। এছাড়াও ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে ‘শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদ ও বিচ্ছিন্নতাবাদের সমর্থন, প্রশংসা ও প্রতিনিধিত্ব’ আগামী সপ্তাহ থেকেই ব্লক করে দেবার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক।